নুরুল আমিন হেলালী, ঈদগাঁও

ঈদগাঁও উপজেলার ঈদগাঁও ও জালালাবাদ ইউনিয়নে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বেশ কয়েকটি মূল্যবান এলইডি লাইট স্থাপন করে। তবে গত কয়েক মাসে উধাও হয়ে গেছে তার অধিকাংশ লাইট।

ঈদগাঁও বঙ্কিম বাজার থেকে উত্তর মাইজপাড়া-মধ্যম মাইজপাড়া হয়ে দক্ষিণ মাইজ পাড়ার ভিতর দিয়ে মেহেরঘোনা ফরেস্ট অফিস সংলগ্ন মহাসড়কের লিঙ্ক সড়ক পর্যন্ত বিগত তিন বছর আগে এবং ঈদগাঁও বাজার-ফরাজী পাড়া সড়কে গত দুই বছর আগে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের অর্থায়নে এসব লাইট লাগানো হয়। সড়কজুড়ে প্রতিটি বৈদ্যুতিক খুঁটিতে দুই ইউনিট করে লাগানো লাইটগুলো বিভিন্ন এলাকা থেকে এখন উধাও হয়ে গেছে।

গতকাল সরেজমিনে দেখা যায়, ঈদগাঁও দক্ষিণ মাইজ পাড়া থেকে ফরেস্ট অফিস সংলগ্ন মহাসড়কের লিঙ্ক সড়কে ওসব বাতির কোন অস্তিত্বই নেই। শুধু তাই নই কোন কোন জায়গায় খুঁটি কিংবা বৈদ্যুতিক তারও বিগত কয়েক মাসের ব্যবধানে উধাও হয়ে গেছে। অপরদিকে জালালাবাদ ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের খামার পাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের পূর্ব পাশের ৩ টি বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে মোট ৬ টি এলইডি লাইট উধাও হয়ে গেছে । উধাও হওয়া এসব লাইটের খালি এঙ্গেল খুঁটির আগায় দেখা গেছে। এসব এলাকা এখন ভুতুড়ে গলি হিসেবে অপরাধীদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। বর্ণিত ইউনিয়নের কয়েকটি এলাকার মাদকাসক্ত কিশোর গ্যাং সদস্যরা মাদকের টাকা যোগাতে সরকারি এসব লাইট চুরি করেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

বর্ণিত এলাকার আইনশৃঙ্খলা অবনতির ব্যাপারে ইতঃপূর্বেও বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল।
কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমোডর (অব.) নূরুল আবছার বলেন, কউক কর্তৃক লাগানো এসব এলইডি লাইটগুলো বিদ্যুৎ বিভাগকে হস্তান্তর করা হয়েছে, এখন তারাই এগুলো দেখভাল করবে। এসব এলাকায় আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে সংশ্লিষ্টদের নজরদারি বাড়ানো প্রয়োজন বলে মনে করেন সচেতন মহল।