সাজন বড়ুয়া সাজু:

কক্সবাজারের উখিয়া মরিচ্যা বাজারের নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে রহস্যজনক নিখোঁজের ৫ দিন পর অর্ধগলিত মরদেহ মিলেছে নিজের গোডাউনে।

মঙ্গলবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) বিকাল সাড়ে ৩টায় স্থানীয় জনগণের সহযোগিতায় অর্ধগলিত মরদেহটি উদ্ধার করে উখিয়া থানা পুলিশ।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে উখিয়া উপজেলা হলদিয়াপালং ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম মরিচ্যা এলাকার বাসিন্দা ছলিম উল্লাহর ছেলে জসিম উদ্দিন (৩৫) মরিচ্যাবাজারস্থ নাঈমা এন্টারপ্রাইজ নামীয় ডিলার ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। গত ১০ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ১২টার দিকে সে মরিচ্যা বাজার এলাকার নিজ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হন।

নিখোঁজের বিষয়ে ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিনের স্ত্রী জোসনা আকতার উখিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরিও করেছিলেন। পুলিশ ও র‌্যাব-১৫ এর সহযোগিতা চেয়ে লিখিত আবেদনও করেছিলেন দুই সন্তানের জননী জোসনা আকতার। নিখোঁজ ব্যবসায়ীর সন্ধানে ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলনও করা হয়েছিল। এতেও সন্ধান মিলছিল না তার।

স্থানীয়রা জানান, ১৫ ফেব্রুয়ারি দুপুরে জসিমের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের গোডাউন থেকে উৎকট গন্ধ পান পথচারীরা। পরে উখিয়া থানা পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে গোডাউনের তালা ভেঙে উদ্ধার করা হয় ব্যবসায়ী জসিমের অর্ধগলিত লাশ।

এ ব্যাপারে নিহত জসিম উদ্দিনের স্ত্রী জোসনা আকতার কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার স্বামীর সাথে কারো বিরোধ নেই। গত পাঁচদিন নিখোঁজ স্বামীর সন্ধান করেছি। আজ তার গলিত মরদেহ গোডাউন থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ১০ ফেব্রুয়ারি রাত ১১টার দিকে স্বামীর সাথে ফোনে কথা হলে কিছু বাজার নিয়ে আসার জন্য বলেছিলাম। পরে রাত সাড়ে ১২টার দিকেও বাড়ি না ফেরায় পুনরায় মোবাইলে চেষ্টা করলে তার ব্যবহৃত ফোন নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়। সারারাত বাড়িতে না ফেরায় ভোর পৌনে ৫টার দিকে পরিবারের লোকজনসহ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখি অফিসকক্ষে একটি তালা লাগানো। পাশে গোডাউনের শার্টারটি খোলা।

এ ব্যাপারে জসিমের চাচা শামশুল আলম বলেন, জসিম অনেক কষ্ট করে তার ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। বিভিন্ন কোম্পানির সাথেও তার লেনদেন ভালোভাবে চলছে। ঘটনার দিন রাত ১০টার দিকে তার সাথে আমার শেষ কথা হয়। কখন, কিভাবে সে নিখোঁজ হয়েছে সে ব্যাপারে কিছু জানি না। পরের দিন শুনেছি।

হলদিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরী বলেন, যতটুকু জেনেছি নিখোঁজ ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিন একজন শান্ত প্রকৃতির লোক। তার সাথে কারো কোনো ধরনের বিরোধ নেই। এরপরেও তাকে হত্যা করা হলো, তার মরদেহ উদ্ধার হলো। তিনি এই হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি করেন।

উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আহাম্মদ সঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, ব্যবসায়ী জসিমের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে।