মোঃ নিজাম উদ্দিন, চকরিয়া:

চকরিয়ায় ছিনতাইকালে চক্রের দুই সদস্যকে হাতেনাতে আটক করেছে জনতা। উদ্ধার করা হয়েছে একটি টমটম। আটকদের ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে থানা পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে।

শুক্রবার(০৪ জুলাই) দিবাগত রাত ১০টার দিকে ডুলাহাজারা ইউনিয়নের মালুমঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আসামিরা হলেন, ডুলাহাজারা পশ্চিম মাইজপাড়ার বাসিন্দার রফিক আহমদের ছেলে মোঃ আনিসুর রহমান (৩০) ও অপরজন একই ইউনিয়নের রংমহল এলাকার জাফর আলমের ছেলে কাইছার উদ্দিন (৩২)।

উদ্ধারকৃত টমটম মালিক ছায়রাখালী এলাকার ফজল কাদের জানান, মাঝেমধ্যে ১৭ বছর বয়সের তার ছেলে মনসুর আলম টমটমটি চালাতে নিয়ে যায়। এদিন চকরিয়া পৌরশহর থেকে ছয়টি মিষ্টির খালি কার্টুনকে পলিথিন মুড়িয়ে বিয়াইর বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার নাম করে তার টমটমটি ভাড়া করেন তিনজন লোক। এটি ছিনতাইয়ের মানসিকতায় যাত্রী ভেসে চক্রটি মালুমঘাট রিংভং সোয়াজানিয়া এলাকায় পৌঁছে। যাত্রীদের অস্বাভাবিক ভাবভঙ্গি দেখে কিছুটা বুঝতে পারে চালক মনসুর। তখন কৌশলে বিষয়টি আরেক টমটম চালককে বোঝানোর চেষ্টা করে। একপর্যায়ে বাজারে শোরগোল দেখে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসেন। পরিস্থিতি বুঝতে পেরে কৌশলে একজন পালিয়ে গেলেও উপস্থিত লোকজন অপর দুই ছিনতাইকারীকে আটক করতে সক্ষম হয়।

ডুলাহাজারা ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান শওকত আলী জানান, টমটম ছিনতাইকারী ধরা পড়েছে মুঠোফোনে খবর পেয়ে বাড়ি থেকে বের হই। মালুমঘাট বাজারে এসে দেখি স্থানীয় লোকজন টমটম ছিনতাইয়ের অভিযোগে দু’জনকে আটক করেছে। এসময় জড়িত পক্ষের কিছু লোক মারমুখী পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। বাধা দেয়াড় চেষ্টা করলে নিজ পরনের শার্টটি ছিঁড়ে যায় এবং পকেটের বারো’শ টাকা কেউ নিয়ে নেয়। এসময় আটক ও পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত করে টমটমসহ তাদেরকে চেয়ারম্যানের নিকট নিয়ে আসি।

ডুলাহাজারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাসানুল ইসলাম আদর জানান, ছিনতাইয়ের কবল থেকে স্থানীয় জনগণের সহযোগিতায় ছাইরাখালী এলাকার একটি টমটম উদ্ধার করা হয়েছে। বিষয়টি থানায় অবগত করে আটকদের পুলিশের নিকট সোপর্দ করি।

চকরিয়া থানার উপপরিদর্শক কামরুল হাসান বলেন, ডুলাহাজারা ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের ফোনে ওসি স্যারের নির্দেশে ছিনতাই অভিযোগে আলামতসহ দুই জনকে আটক করা হয়েছে। এবিষয়ে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

Spread the love