আব্দুস সালাম,টেকনাফ:
শপথ না করার দায়ে পিতার সামনে ছেলেদের বেধড়ক পেটানো ও ছেলেদের সামনে পিতাকে বেধড়ক মারধর- গ্রামের মেম্বারের এটা কোন ধরণের সালিশ? পূর্ব শত্রুতার জের ধরে টেকনাফের বাহারছড়া ৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার আমান উল্লাহ আমান সালিশ বিচারের ডেকে নিয়ে রবিবার রাতে কান্ডজ্ঞানহীন এ কাজটি করেছেন। পরে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে কাউকে না জানাতে ভিডিও ধারণ করে জবানবন্দীও নিয়েছেন ওই মেম্বার।
জানা যায়, কক্সবাজার সিটি কলেজের ডিগ্রী প্রথম বর্ষের ছাত্র টেকনাফ বাহারছড়া শীলখালীর বাসিন্দা ফারুক মাহমুদ, তার ছোট ভাই সাইমুম ও তাদের বাবাকে রবিবার রাতে ডেকে নিয়ে কোন কিছু বুঝে ওঠার আগেই মারধর শুরু করে মেম্বার ও তার লাঠিয়াল বাহিনী। রাত দশটা থেকে মধ্যরাত দুইটা পর্যন্ত পাশবিক নির্যাতন চালিয়েছে।
স্থানীয় প্রতিবেশীরা জানান, রাতে কান্নার শব্দ শুনে আমরা মেম্বারের বাড়ির সামনে অপেক্ষা করি। খবরটি পুলিশকে জানানো হলে বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক নুর মোহাম্মদ ওই মেম্বারকে ফোন করে তাদের ছেড়ে দিতে বলেন।

এদিকে বেধড়ক মারধরের কথা সত্য নয় দাবি করে মেম্বার আমান উল্লাহ আমান জানান, অভিযোগকারীর আত্মীয় গৃহকর্মী। গৃহকর্তা আনোয়ারের কাছ থেকে টাকা পাওনা থাকায় আমার কাছে নালিশ নিয়ে আসে। উপস্থিত সকলের সম্মুখে টাকা পাবে না বলে জানালে আনোয়ারকে শপথ করতে বলা হয়। এতে তিনি অস্বীকৃতি জানালে দুয়েকটা থাপ্পড় দেয়া হয়।