আব্দুস সালাম,টেকনাফ:
কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলা ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত হতে যাচ্ছে। সোমবার (৭ আগস্ট) বিকেলে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত উপজলা ঘোষনার বিষয়ে টেকনাফ উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামানের সভাপতিত্বে এক প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ এরফানুল হক চৌধুরী, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মোঃ খোরশেদ আলম, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) হাবিবুর রহমান, একাডেমিক সুপারভাইজার নুরুল আফসার, পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা চিন্ময় বড়ুয়া মানস প্রমুখ।

এ সময় টেকনাফ উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান বলেন, টেকনাফ উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে ১ম, ২য়, ৩য় ও ৪র্থ পর্যায়ে সর্বমোট ৪৫৯টি ঘর ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। ৫ম ধাপে আগামী ৯ আগস্ট (বুধবার) টেকনাফ উপজেলার মোট ৬৪টি পরিবারকে জমিসহ ঘর প্রদান কার্যক্রমের মাধ্যমে উদ্ভোধন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গৃহহীন ও ভূমিহীনদের মাঝে এসব নতুন ঘর হস্তান্তর করবেন বলে জানা গেছে।

এদিকে আশ্রয়ন প্রকল্প ২ এর আওতায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ব্যবস্থাপনায় মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী “সারাদেশের ন্যায় টেকনাফ উপজেলায় সর্বমোট ৫২৩টি ভূমিহীন পরিবার পাওয়া যায়। তৎমধ্যে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের ১১৪পরিবার,টেকনাফ পৌরসভার ২৩পরিবার, সাবরাং ইউনিয়নের ৪২ পরিবার, বাহারছড়া ইউনিয়নের ১১৮ পরিবার, হ্নীলা ইউনিম্নের ৮০ পরিবার এবং হোয়াইক্যং ইউনিয়নের ১৪৬ পরিবার সর্বমোট ৫২৩ পরিবার। টেকনাফ উপজেলায় মোট ৫২৩ ভূমিহান উপকারভোগী পরিবারকে পুণর্বাসন করার জন্য পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয় এবং পুর্ণাঙ্গ তালিকা প্রস্তুত করা হয়।

টেকনাফ উপজেলার ৫২৩ পরিবার উপকারভোগী ভূমিহীনকে পুনর্বাসনের জন্য ১ম পর্যায়ে ৫০ পরিবার ভূমিহীন উপকারভোগীকে পুনর্বসানের বরাদ্দ পাওয়া যায়। ২য় পর্যায়ে ২১২ পরিবার ভূমিহান উপকারভোগীকে পুনর্বাসনের বরাদ্দ পাওয়া যায়। ৩য় পর্যায়ে ১১০ পরিবার ভূমিহীন উপকারভোগীকে পুনর্বাসনের বরাদ্দ পাওয়া যায়। বরাদ্দপ্রাপ্তি স্বাপেক্ষে ১ম, ২য় ও ৩য় পর্যায়ের মোট ৩৭২ পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। সর্বশেষ ৪র্থ পর্যায়ে ১৫১ পরিবার উপকারভোগী ভূমিহীন পুনর্বাসনের বরাদ্দ পাওয়া যায়। তৎমধ্যে ৪র্থ পর্যায়ের ৮৭ পরিবারকে উপকারভোগী ভূমিহীনকে পুনর্বাসন করা হয়েছে এবং অবশিষ্ট ৬৪ পরিবারকে আগামী ৯ আগস্ট গৃহ হস্তান্তর করা হবে।

হস্তান্তরিত ঘরের স্থানের বিবরণ অনুযায়ী টেকনাফ উপজেলার ৫২৩ পরিবার ভূমিহীন উপকারভোগীদের উপজেলার বিভিন্ন স্থানে পুনর্বাসন করা হয়। তৎমধ্যে টেকনাফ সদর ইউনিয়ন ও টেকনাফ পৌরসভার ভূমিহান উপকারভোগীদের পল্লান পাড়ায় ১৯ পরিবাকে, নাজির পাড়া ১৮ পরিবারকে, কচুবনিয়ায় ১৮ পরিবারকে, লেঙ্গুরবিল ভিন্ন ভিন্ন স্থানে মোট ৩১ পরিবার, বটতলী বাজার ১২ পরিবারকে, গোদারবিল ১পরিবারকে, হাজম পাড়া ৫ পরিবারকে, মহেশখালীয়া পাড়ায় ৩৩ পরিবারকে মোট ১৩৭ পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়। সাবরাং ইউনিয়নের ভূমিহীন উপকারভোগীদের মুন্ডার ডেইল নামক স্থানে ১০ পরিবারকে, আলীর ডেইল নামক স্থানে ৪ পরিবারকে, পুরান পাড়ায় ২৮ পরিবারকে মোট ৪২ পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়। হোয়াইক্যং ইউনিয়নের ভূমিহীন উপকারভোগীদের আমতলী নামক স্থানে ১৪ পরিবারকে, মিনাবাজার নামক স্থানে ৭২ পরিবারকে, খারাংখালী নামক স্থানে ৬০ পরিবারকে মোট ১৪৬ পরিবারকে পুর্ণবসান করা হয়। হ্নীলা ইউনিয়ন ভূমিহীন উপকারভোগীদের মৌলভী বাজার নামক স্থানে ২৮ পরিবারকে, ওয়াব্রাং নামক স্থানে ২৮ পরিবারকে, দমদমিয়া নামক স্থানে ২৪ পরিবারকে মোট ৮০ পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়। বাহারছড়া ইউনিয়নের ভূমিহীন উপকারভোগীদের কচ্ছপিয়া নামক স্থানে ৯ পরিবারকে, বাইন্যা পাড়ায় ৩ পরিবারকে, চৌকিদার পাড়ায় ১৮ পরিবারকে, মনতলী নামক স্থানে ৫০ পরিবারকে, বাজার পাড়ায় ৬ পরিবারকে, আছারবনিয়ার ভিন্ন ভিন্ন স্থানে মোট ৩২ পরিবার মোট ১১৮ পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়।