চকরিয়া সংবাদদাতা:

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়ন পরিষদে জাতীয়তা সনদের দোহাই দিয়ে পরিকল্পিত ভাবে ইউপি সদস্য মোঃ ফকরুদ্দিনের উপর হামলা চালায় দূবৃর্ত্তরা।হামলার বিষয়ে ৫জনকে আসামী করে থানায় মামলা রুজু করা হয়েছে।এতে প্রধান আসামী রবিউল হোসেন (২২) কে গ্রেপ্তার করা হয়।
গত শনিবার (৫জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ইউনিয়ন পরিষদের এ ঘটনা ঘটে।

আহত মেম্বার মোঃ ফকরু উদ্দিন(৪৫) ডুলাহাজারা ইউপির ৬নং ওয়ার্ডের ২বারের নির্বাচিত মেম্বার।তিনি বৈরাগীরখিল গ্রামের জাফর আলমের ছেলে।

ঘটনার বিষয়ে ডুলাহাজারা ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান-১ মোঃ শওকত আলী ও প্যানেল চেয়ারম্যান-২ রিয়াজ উদ্দিন সিপু জানান,সারাদেশের ন্যায় ভোটার হালনাগাদ কার্যক্রম এখানেও চলছে।তাই জনগণের সুবিধার্থে প্রতিদিনের ন্যায় শনিবার দিনেও মেম্বার মোঃ ফকরু উদ্দিন পরিষদের একটি কক্ষে বসে নিজ ওয়ার্ডের জনগণ সহ অন্য সেবাপ্রার্থীদেরকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।এমতাবস্থায় ৫নং ওয়ার্ডের উত্তরপাড়া গ্রামের নুর মোহাম্মদ ছেলে রবিউল হোসেন (২২) এসে জাতীয়তা সনদ চাইছিল।উত্তরে মেম্বার ফকরু সনদের মুন্ডা বই দেখিয়ে বলে শেষ হয়ে গেছে।তুমি সনদটি কালকে নিও।তখন ছেলেটি কক্ষ থেকে বের হয়ে যায়। ঠিক ১০মিনিট সময় যেতে না যেতে আরো ৪/৫জন লোক আসে।পরে সবাই একত্রে কক্ষে ঢুকে কোন কথাবার্তা ছাড়াই মারধর সহ লুটপাট করে।এসময় মেম্বার আহত অবস্হায় চিৎকার করলে,উপস্হিত লোকজন সহ অন্যান্য মেম্বারেরা এগিয়ে তাকে উদ্ধার করেছে।এই ফাঁকে দুবৃর্ত্তরা পালিয়ে যেতে চাইলে,স্হানীয়রা রবিউলকে আটক করে রাখেন।পরে পুলিশ আসলে তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।এরপূর্বে আহত মেম্বার ফকরুকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি দিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

চকরিয়া থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ জুয়েল ইসলাম বলেন,ডুলাহাজারা পরিষদের ভিতরে মেম্বার ফকরু উপর হামলা করা হয়।হামলার সময় স্হানীয় জনগণ রবিউল নামের এক হামলাকারীকে আটক রেখে পুলিশকে হস্তান্তর করেন।এবিষয়ে আহত মেম্বার বাদী হয়ে ৫জনের নামে এজাহার দায়ের করেছেন।দায়েরকৃত এজাহারটি মামলা হিসেবে রুজু করা হয়েছে।পরে ধৃত আসামীকে রবিবারে আদালতে সোপর্দ্দ করা হয়েছে।