গতকাল ৮ সেপ্টেম্বর দৈনিক সকালের কক্সবাজার পত্রিকায় প্রকাশিত ‘জানারঘোনায় আইনজীবির বসতসত ভিটায়, হামলা, ভাংচুর, লুটপাট: ফাঁকা গুলি বর্ষণ, আহত ২’ শীর্ষক সংবাদটটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে।
সংবাদটটি সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যমূলক।
সংবাদে উল্লেখিত হামলা, ভাংচুর, লুটপাট: ফাঁকা গুলি বর্ষণতো দূরের কথা, কোনো ঘটনাই ঘটেনি।
মূলত আমাদের ফাঁসাতে মিথ্যা মামলা সাজাতে এই কাল্পনিক ঘটনা সাজিয়ে মিথ্যা সংবাদটটি পরিবেশন করা হয়েছে।

প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে, জমিটি আমাদের স্বত্ত্বীয়। ছিদ্দিক আহমদের পুত্র খলিল থেকে কামরুন্নাহার গং। দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে জমিটি আমাদের গংয়ের অংশিদাররা ভোগ দখলে রয়েছি। সীমানা দেয়ালও নির্মাণ করি। এর মধ্যে রিয়াজ উদ্দীনকে জায়গাটি দেখভালের জন্য কেয়ারটেকার হিসেবে দায়িত্ব দিই। তখন তিনি কোর্টের মুন্সি ছিলেন। তখন তাকে জমিটি ভরাটের জন্য পাঁচ লাখ টাকাও প্রদান করি। দীর্ঘদিন সে সেভাবে কাজ করেছে। এর মধ্যে এই জমির প্রতি লোলুপ দৃষ্টি পড়ে। এর প্রভাব খাটিয়ে জমিটি দখলের পাঁয়তারা করে।

আমাদের অজান্তে সেখানে রাতারাতি একটি ঝুপড়িঘর নির্মাণ করে ফেলে। এভাবে রিয়াজ উদ্দীন অবৈধভাবে জবর দখল করে ফেলে। এক পর্যায়ে সে জমিটি নিজের বলে দাবি করে বসে। মূলত তাকে বিশ্বাস করার মাশুল গুণতে হচ্ছে আমাদের।
আমরা জমিটি উদ্ধারের জন্য চেষ্টা করলে আমাদের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র শুরু করে রিয়াজ উদ্দীন। এরই ধারাবাহিকতায় হামলা, লুটপাট, ভাংচুর ও গুলি বর্ষণের মতো নানা ভুয়া ও জঘন্য কল্পকাহিনী সাজিয়ে মিথ্যা মামলাসহ নানাভাবে ফাঁসাতে চেষ্টা করছে।
পরিবেশে এই মিথ্যা সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং এ ব্যাপারে কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

প্রতিবাদকারী
আমিন উল্লাহ
জানারঘোনা, ঝিলংজা, কক্সবাজার সদর