মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কক্সবাজার শহরের মধ্যম টেকপাড়া নিবাসী মরহুম আলহাজ্ব আবদুল্লাহ পেশকারের প্রথম পুত্র, কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের উপ প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ হাবিবের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারী) সকাল ১০ টায় কক্সবাজার শহরের বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্স মাঠে মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ হাবিব এর বিশাল নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। কক্সবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ এর খতিব ও মরহুমের নানা আল্লামা মাহমুদুল হক এর ইমামতিতে অনুষ্ঠিত জানাজায় প্রচুর মুসল্লীর সমাগম ঘটে। বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্স মাঠ ও মসজিদ কানাই কানাই পূর্ণ হয়ে চর্তুপাশের সড়কগুলোও মুসল্লীতে পূর্ণ হয়ে যায়।

জানাজার পূর্বে অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী’র সঞ্চালনায় পরিবারের পক্ষে মরহুমের ছোট ভাই, ইউনিয়ন ব্যাংক উখিয়া শাখার ব্যবস্থাপক এম. জাহেদ উল্লাহ জাহেদ, অন্যান্যের মধ্যে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান, কক্সবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীনুল হক মার্শাল, বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্সের মহাপরিচালক শিক্ষাবিদ এম.এম সিরাজুল ইসলাম, কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ তারেক, আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল খালেক, কক্সবাজার জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ সভাপতি অধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন, কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের রাজস্ব শাখার প্রশাসনিক কর্মকর্তা এহছানুল করিম, কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সাবেক স্টাফ নুরুল কবির, কক্সবাজার পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এহেছান উল্লাহ বক্তব্য রাখেন।

জানাজায় কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমোডর (অব:) নুরুল আবছার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক নাসিম আহমেদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বিভীষণ কান্তি দাশ, পটিয়া চৌকি আদালতের সিনিয়র সহকারী জজ মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন, কক্সবাজার প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মুজিবুল ইসলাম, কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট শাহজালাল চৌধুরী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আয়াছুর রহমান, সাবেক পিপি অ্যাডভোকেট নুরুল মোস্তফা মানিক, কক্সবাজার আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জিয়া উদ্দিন আহমদ, দৈনিক সৈকত সম্পাদক ও কক্সবাজার প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মাহবুবুর রহমান, জেলা পরিষদের সদস্য মাহমুদুল করিম মাদু, সিনিয়র সাংবাদিক মুহাম্মদ আলী জিন্নাত, বাংলাদেশ কালেক্টরেট সহকারী সমিতি কক্সবাজার জেলা শাখার সভাপতি নাজির স্বপন পাল, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা প্রশাসকের গোপনীয় সহকারী এম. ফরিদুল আলম ফরিদ, আওয়ামী লীগ নেতা আসিফুল মওলা, স্বাস্থ্য বিভাগীয় কর্মচারী সমিতি কক্সবাজার জেলা শাখার সভাপতি মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি দপ্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ, রাজনীতিবিদ, ক্রীড়াবিদ, আইনজীবী, শিক্ষক, চিকিৎসক, সাংবাদিক, ব্যবাসায়ী, আলেম, পেশাজীবী সহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার প্রচুর মানুষ জানাজায় অংশ নেন।

জানাজা শেষে কক্সবাজার শহরের টেকপাড়া জামে মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থানে পিতা আলহাজ্ব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ পেশকার ও মাতা জেবুন্নাহার বেগমের কবরের পাশে মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ হাবিব-কে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়।

মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ হাবিব সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারী) বাংলাদেশ সময় রাত দেড়টার দিকে ভারতের মুম্বাইয়ের টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। তিনি ক্যান্সারে আক্রান্ত ছিলেন। জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য অনুযায়ী মরহুম হাবিব উল্লাহ হাবিব এর জন্ম তারিখ : ০৭/১২/১৯৭৬ ইংরেজি। সে অনুযায়ী মৃত্যুর দিন তার বয়স হয়েছিল ৪৭ বছর ১ মাস ২৭ দিন। মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ হাবিব এর মরদেহ বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ১২ টার দিকে ভারত থেকে কক্সবাজার শহরের টেকপাড়া বড়পুকুর পাড়স্থ নিজ বাসভবন কুসুম নিলয় এ আনা হলে সেখানে শত শত আত্মীয় স্বজন, শুভাকাঙ্ক্ষী, সহকর্মী, পাড়া-প্রতিবেশীদের বুকফাটা আর্তনাদে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। প্রকম্পিত হয় আকাশ বাতাস। মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ হাবিব এর নিষ্প্রাণ চেহারাটা একবার দেখার জন্য প্রচন্ড ভীড় জমে যায়। সেখানে মৃতদেহকে ঘিরে সৃষ্টি হয় এক আবেগঘন পরিবেশের। সবার মুখে মুখে “হায় হাবিব! হায় হাবিব! সবাইকে ফাঁকি দিয়ে চলে গেলি।”

মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ হাবিব ঐতিহ্যবাহী মধ্যম টেকপাড়া সমাজ কমিটির সর্দার ছিলেন, কক্সবাজার জেলা ফুটবল টিমের কৃতি ফুটবলার, টেকপাড়া সোসাইটির উপদেষ্টা, হজরত মায়মুনা (রা:) মাদরাসা ও আবদুল্লাহ-নাহার হেফজ এতিমখানার জমিদাতা সদস্য ও পরিচালনা কমিটির সদস্য, ন্যাশনাল কক্স ক্রীড়া সংঘ এর উপদেষ্টা সহ কক্সবাজারের বিভিন্ন শিক্ষা, সামাজিক, ধর্মীয়, ক্রীড়া সহ কল্যানকর আরো অনেক প্রতিষ্ঠানের সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন।

৩ ভাই, ৩ বোনের মধ্যে মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ হাবিব ছিলেন তৃতীয়। তাঁরা হলেন, হাসিনা মমতাজ জোসনা, সেলিনা আকতার, মরহুম মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ হাবিব, কক্সবাজার জেলা পরিষদ কার্যালয়ের উচ্চমান সহকারী মোহাম্মদ আমান উল্লাহ আমান, ইউনিয়ন ব্যাংক উখিয়া শাখার ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ জাহেদ উল্লাহ ও তছলিমা আকতার।

মৃত্যুকালে মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ হাবিব স্ত্রী, এক পুত্র, এক কন্যা সন্তান সহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে যান। একমাত্র কন্যা ফাবিহা হাবিব তিলকা বিবাহিত ও এলএলবি অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী এবং জামাতা মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসাইন বাংলাদেশ ব্যাংকের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা। একমাত্র পুত্র আবদুল্লাহ আল সাদ তম্ময় কক্সবাজার সরকারি কলেজে একাদশ শ্রেণিতে অধ্যয়নরত। সহধর্মিণী সৈয়দা রেহেনা বেগম বেলী কক্সবাজার শহরের আইবিপি রোডস্থ মরহুম সৈয়দ মোজাফফর সওদাগর এর কন্যা এবং এজিপি অ্যাডভোকেট সৈয়দ রাশেদ উদ্দিন, চট্টগ্রামস্থ প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক সৈয়দ জসিম উদ্দিন এর ছোট বোন।